মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমি

                    বান্দরবান পাবর্ত্য জেলার সবর্দক্ষিনে এবং বাংলাদেশের দক্ষিণ পূবর্কোণে অবস্থিত একদিকে বিশ্ব বিখ্যাত পযর্টন নগরী কক্সবাজারের সাথে আড়া আড়ি অপর দিকে দু’দিকে মায়ানমার ঘেষে নাফতীর পযন্ত‌ বিস্তৃত সবুজ শ্যামল পাখ পাখালীর কল কাকলীমূখর উপজেলাটির নাম নাইক্ষ্যংছড়ি ।

 

                    সীমানাঃ- উত্তরে -লামা উপজেলা,দক্ষিনে -মায়ানমার, পূর্বে-মায়ানমার পশ্চিমে-কক্সবাজার জেলার উখিয়া,রামু ও কক্সবাজার সদর উপজেলা ।

 

                     আয়তনঃ- ১৮১ বর্গমাইল(৪৬৯ বর্গ কিলোমিটার)।

 

লোক সংখ্যাঃ- প্রায় ৬০,০০০ জন।

 

                    বাসিন্দাঃ- মুসলমান, মারমা, চাক, তঞ্চগ্যা, মুরুং, ত্রিপুরা, হিন্দু ও বড়ুয়া । বাংলাদেশের একমাত্র চাক সম্প্রদায় এই উপজেলাতেই বসবাস করে।

 

                     নামকরণঃ-  নাইক্ষ্যংছড়ি নামের উৎপক্তি হয় প্রথম মারমাদের বসতি স্থাপনের পর। মারমারা প্রথম বর্তমান উপজেলা সদরে বসবাস শুরু করে । তারপূর্বে এই উপজেলার পুরাতন বসতি ছিল- আশারতলী ও তুমব্রু ঘুমধুম এলাকায়।

 

                     মারমা ভাষায় নেঞ অর্থ দেবতা । ক্ষং অর্থ খাল। স্বং অর্থ ও খাল । এখানে স্বং হবে ক+সা+ম+্য = এর মিলিত অক্ষর এর সমন্বয়ে ক্ষং বা স্বং অর্থ-খাল। অর্থাৎ দেবতার খাল । এ অর্থ থেকে  নেঞ +ক্ষং= নেঞ ক্ষং শব্দ হতে নাইক্ষ্যংছড়ি রূপান্তরিত হয়। কারো কারো মতে নেঞ অর্থ দেবতা, টং অর্থ পাহাড়। দেবতার পাহাড় । নেঞ+টং= নেহ টং শব্দ হতে উৎপক্তি।

 

         প্রথম থানা স্থাপনকালঃ- ১৯১৮ খ্রিঃ।

 

         আনুষ্ঠানিক থানার উদ্ভোধনঃ- ১৯২৩ খ্রিঃ ।

 

         প্রথম মানোন্নীত থানাঃ- ( প্রথম পর্যায়ের) পরবর্তীতে

 

         উপজেলায় রূপান্তরঃ- ১৯৮২ খ্রিঃ।